বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সাইবার নিরাপত্তা আইন-2023 এ কী আছে, কী নেই ? Bangldaesh Digital Security Act

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ আগস্ট ১৮, ২০২৩ | ১১:৫৪ 102 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ আগস্ট ১৮, ২০২৩ | ১১:৫৪ 102 ভিউ
Link Copied!

সাইবার নিরাপত্তা আইন সাধারণভাবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার করে সংগঠিত অপরাধ, যেমন ডেটা চুরি, ফিশিং, সাইবার আক্রমণ ইত্যাদির বিরুদ্ধে সৎ ও নিষ্পাক্ষ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রণীত হয়। সম্প্রতি বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন DSA বাতিল করে নতুন একটি আইন করার সিদ্ধান্তে সম্মতি দিয়েছে বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা। নতুন এই আইনটির নামকরণ করা হচ্ছে সাইবার নিরাপত্তা আইন ২০২৩ । যাতে মোট ৭টি ধারা থাকবে।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বেশ কয়েকটি ধারা পরিবর্তন করে নতুন এই আইনটি করা হচ্ছে। অর্থাৎ আগের আইনের বেশিরভাগ ধারাই নতুন আইনে থাকছে। তবে কিছুটা পরিবর্তিত হয়ে।

 

বিজ্ঞাপন

সাইবার নিরাপত্তা আইন কি?

“সাইবার নিরাপত্তা আইন” হলো ঐক্যরাষ্ট্রে সাইবার স্পেস ও সাইবার জগতে নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য গঠিত আইনগুলির সমূহের সমষ্টি। সাইবার নিরাপত্তা আইন বৈশিষ্ট্যপূর্ণভাবে সাইবার স্পেসে হ্যাকিং অপরাধ, ডেটা চুরি, অপরাধী কার্যকলাপ ইত্যাদির প্রতিরোধ ও শাস্তিপ্রদান সংক্রান্ত নীতি, আদর্শ, ব্যবস্থা এবং আইনের সমষ্টি বোঝায়।

 

কোন কোন ধারাগুলো পরিবর্তন হচ্ছে নতুন আইনে?

সাইবার নিরাপত্তা আইনে যেসব ধারাগুলো পরিবর্তন হচ্ছে তার মধ্যে অন্যতম ধারা-২১ । আগে ২১ ধারায় অভিযুক্ত কাউকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং এক কোটি টাকা জরিমানার বিধান ছিল, এবং দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে এই সাজা দ্বিগুণ হওয়ার বিধান ছিল। ওই একই ব্যক্তি যদি বারবার ২১-ধারায় অভিযুক্ত হন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৩ কোটি টাকার জরিমানার বিধান ছিল।

বিজ্ঞাপন

পরিবর্তিত নতুন আইনে সাজার মেয়াদ ১০ বছর থেকে কমিয়ে ৭ বছর করা হয়েছে। তবে এখানে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে দ্বিগুণ শাস্তির বিধান বাতিল করা হয়েছে

 

অপরিবর্তিত থাকছে ধারা-৪৩

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সবচেয়ে বিতর্কিত ধারা ছিল ধারা-৪৩। যে ধারাটি নতুন আইনেও সম্পূর্ণ অপরিবর্তিত থাকছে। ৪৩-ধারা অনুযায়ী যে কোনও সন্দেহভাজন ব্যক্তি সাইবার নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে, এই সন্দেহে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করতে পারে

তথ্য ও মত প্রকাশ নিয়ে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক কাজ করা একটি সংগঠন, Article 19 বলছে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি অপব্যবহার হয়েছে এই ধারার। ধারা-৪৩ ব্যবহার করে ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে 2023 সালের মার্চ পর্যন্ত ৬৭০টির বেশি মামলা করা হয়েছে। এবং এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে ১১৩৬ জনকে।

 

তার মধ্যে ৪০৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এবং এদের বেশিরভাগকে গ্রেফতারের পর মামলা দেওয়া হয়েছে। এবং দেখা গেছে এসব মামলার প্রায় ৪০% প্রধানমন্ত্র, প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় স্বজন, মন্ত্রী বা সরকারদলীয় বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদেরকে কটূক্তির অভিযোগে মামলাগুলো করা হয়েছে।

 

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ বছর জুন মাসে সংসদে জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিভিন্ন ধারা ব্যবহার করে সারা দেশে প্রায় ৭০০০ এর বেশি মামলা করা হয়েছে। তার মধ্যে প্রায় ৫ হাজারের বেশি মামলা, এখনও বিচারাধীন অবস্থায় আছেন।

 

নতুন আইনে থাকছে জামিনযোগ্য বিধান

সাইবার নিরাপত্তা আইন-2023 এ কী আছে, কী নেই ? Bangldaesh Digital Security Act

সাইবার নিরাপত্তা আইন সাধারণভাবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার করে সংগঠিত অপরাধ, যেমন ডেটা চুরি, ফিশিং, সাইবার আক্রমণ ইত্যাদির বিরুদ্ধে সৎ ও নিষ্পাক্ষ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রণীত হয়। সম্প্রতি বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন DSA বাতিল করে নতুন একটি আইন করার সিদ্ধান্তে সম্মতি দিয়েছে বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা। নতুন এই আইনটির নামকরণ করা হচ্ছে সাইবার নিরাপত্তা আইন ২০২৩ । যাতে মোট ৭টি ধারা থাকবে।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বেশ কয়েকটি ধারা পরিবর্তন করে নতুন এই আইনটি করা হচ্ছে। অর্থাৎ আগের আইনের বেশিরভাগ ধারাই নতুন আইনে থাকছে। তবে কিছুটা পরিবর্তিত হয়ে।

 

সাইবার নিরাপত্তা আইন কি?

“সাইবার নিরাপত্তা আইন” হলো ঐক্যরাষ্ট্রে সাইবার স্পেস ও সাইবার জগতে নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য গঠিত আইনগুলির সমূহের সমষ্টি। সাইবার নিরাপত্তা আইন বৈশিষ্ট্যপূর্ণভাবে সাইবার স্পেসে হ্যাকিং অপরাধ, ডেটা চুরি, অপরাধী কার্যকলাপ ইত্যাদির প্রতিরোধ ও শাস্তিপ্রদান সংক্রান্ত নীতি, আদর্শ, ব্যবস্থা এবং আইনের সমষ্টি বোঝায়।

 

কোন কোন ধারাগুলো পরিবর্তন হচ্ছে নতুন আইনে?

সাইবার নিরাপত্তা আইনে যেসব ধারাগুলো পরিবর্তন হচ্ছে তার মধ্যে অন্যতম ধারা-২১ । আগে ২১ ধারায় অভিযুক্ত কাউকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং এক কোটি টাকা জরিমানার বিধান ছিল, এবং দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে এই সাজা দ্বিগুণ হওয়ার বিধান ছিল। ওই একই ব্যক্তি যদি বারবার ২১-ধারায় অভিযুক্ত হন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৩ কোটি টাকার জরিমানার বিধান ছিল।

পরিবর্তিত নতুন আইনে সাজার মেয়াদ ১০ বছর থেকে কমিয়ে ৭ বছর করা হয়েছে। তবে এখানে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে দ্বিগুণ শাস্তির বিধান বাতিল করা হয়েছে

 

অপরিবর্তিত থাকছে ধারা-৪৩

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সবচেয়ে বিতর্কিত ধারা ছিল ধারা-৪৩। যে ধারাটি নতুন আইনেও সম্পূর্ণ অপরিবর্তিত থাকছে। ৪৩-ধারা অনুযায়ী যে কোনও সন্দেহভাজন ব্যক্তি সাইবার নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে, এই সন্দেহে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করতে পারে

সাইবার নিরাপত্তা আইন
Arrested

তথ্য ও মত প্রকাশ নিয়ে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক কাজ করা একটি সংগঠন, Article 19 বলছে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি অপব্যবহার হয়েছে এই ধারার। ধারা-৪৩ ব্যবহার করে ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে 2023 সালের মার্চ পর্যন্ত ৬৭০টির বেশি মামলা করা হয়েছে। এবং এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে ১১৩৬ জনকে।

 

তার মধ্যে ৪০৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এবং এদের বেশিরভাগকে গ্রেফতারের পর মামলা দেওয়া হয়েছে। এবং দেখা গেছে এসব মামলার প্রায় ৪০% প্রধানমন্ত্র, প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় স্বজন, মন্ত্রী বা সরকারদলীয় বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদেরকে কটূক্তির অভিযোগে মামলাগুলো করা হয়েছে।

 

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ বছর জুন মাসে সংসদে জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিভিন্ন ধারা ব্যবহার করে সারা দেশে প্রায় ৭০০০ এর বেশি মামলা করা হয়েছে। তার মধ্যে প্রায় ৫ হাজারের বেশি মামলা, এখনও বিচারাধীন অবস্থায় আছেন।

আরো পড়ুন: পারমানবিক বোমার জনক ওপেনহাইমার এর জীবন কাহিনী। Atomic Bomb

 

নতুন আইনে থাকছে জামিনযোগ্য বিধান

জামিনযোগ্য বিধান, সাইবার নিরাপত্তা
জামিনযোগ্য বিধান

আগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বেশ কিছু ধারায় জামিন দেওয়ার কোনও বিধান ছিল না। যেটি নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইনে সংযোজজন করা হচ্ছে। যেমন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৮-ধারায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ লক্ষ টাকা জরিমানার বিধান ছিল। এবং একই অপরাধ বারবার করলে সেখানে জরিমানা এবং কারাদণ্ড দ্বিগুণ করার বিধান ছিল।

 

নতুন আইনে এই ধারায় সাজার মেয়াদ কমানো হয়েছে এবং এই ধারায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে জামিন দেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে।

 

কারাদণ্ড থাকছে না, ২৯-ধারায়

নিরাপত্তা আইনের ২৯-ধারায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে তিন বছরের কারাদণ্ড এবং ৫ লক্ষ টাকার জরিমানার বিধান ছিল। এবং একটি অপরাধ বারবার করলে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ লক্ষ টাকার জরিমানার বিধান রাখা হয়েছিল। নতুন আইনে এই ধারায় কোনো ধরনের কারাদণ্ডের বিধান রাখা হচ্ছে না। শুধুমাত্র জরিমানা দিতে হবে।

 

পূর্বের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে হ্যাকিং নিয়ে খুব বেশি বিস্তারিত কিছু না থাকলেও নতুন আইনে হ্যাকিং নিয়ে বেশ কিছু নতুন ধারণা দেওয়া হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২-ধারায় সরকারি গোপনীয়তা ভঙ্গের অভিযোগে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ১৪ বছরের কারাদণ্ডের বিধান ছিল। যেটি কমিয়ে অর্ধেক করা হয়েছে। অর্থাৎ ৭ বছর

 

অন্যদিকে এই একই অপরাধ বারবার করলে তার সাজার মেয়াদ দ্বিগুণ করার যে বিধান সেটিও বাতিল করা হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩৩-ধারাও বিলুপ্ত করা হয়েছে এবং সেখানে হ্যাকিং সম্পর্কিত আইন নামে একটি নতুন আইন প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। নতুন এই আইনে অনধিক ১৪ বছর কারাদণ্ড অথবা ১ কোটি টাকার সর্বোচ্চ জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

 

তথ্যপ্রযুক্তি সংক্রান্ত অপরাধ নিয়ে ২০০৬ সালে বাংলাদেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন প্রণয়ন করা হয়, যা আইসিটি আইন নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। 2016 সালে এ আইনটিকে আরও কঠোর করে প্রণয়ন করা হয়। এই সময় আইনটির ৫৭ ধারা নিয়ে তুমুল বিতর্ক সৃষ্টি হয় এবং সেটি বাতিলের দাবি ওঠে। এরপর 2018 সালের জানুয়ারিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নামে নতুন একটি আইনের খসড়া অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা।

 

যে আইনটি অপব্যবহার এবং বাক স্বাধীনতা রোধের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে এমন অভিযোগ এ দেশে বিদেশে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে। এরই মাঝে নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রায় একই ধরনের একটি আইন নতুন একটি নাম দিয়ে কার্যকর করতে যাচ্ছে সরকার।

 

ট্যাগ:

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড এবং পূরণ করে আবেদন করার নিয়ম

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৪ | ৬:২৬ 22 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৪ | ৬:২৬ 22 ভিউ
Link Copied!

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড করার কথা ভাবছেন? তাহলে আজকের এই লেখাটি আপনার জন্য।

খুব সহজে আপনারা কিভাবে অনলাইন থেকে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম pdf ডাউনলোড করবেন এবং এই ফরমটি কিভাবে পূরণ করবেন? কিভাবে বয়স্ক ভাতার জন্য আবেদন করবেন সকল বিষয়গুলো আজকের এই পোষ্ট থেকে আপনারা জানতে পারবেন।

আপনারা সকলেই জানেন বয়স্ক ভাতা ১৯৯৭ থেকে ৯৮ অর্থবছর থেকে বাংলাদেশ সরকার বয়স্ক ভাতা পরিচালনা করে আসছে যা সমাজসেবা অধিদপ্তর পরিচালনা করছে।

বিজ্ঞাপন

 

বয়স্ক ভাতা অনলাইন আবেদন ২০২৪

বর্তমানে বয়স্ক ভাতা- বিধবা ভাতা -প্রতিবন্ধী ভাতা এই সকল কার্যক্রম গুলো অনলাইন মুখি হওয়ার ফলে, এখন বর্তমানে অনলাইন থেকে এই সকল কার্যক্রম গুলো পরিচালনা করা যাচ্ছে। তারি ধারাবাহিকতায় আপনারা বয়স্ক ভাতা আবেদনের ফরম অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

বিজ্ঞাপন

 

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম আপনি চাইলে হাতে থাকা স্মার্ট মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ চালু করে ঘরে বসে ডাউনলোড করতে পারবেন। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সঠিক মাধ্যম না জানার ফলে বিভিন্ন জন ফেক বিভিন্ন মাধ্যমে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম আপলোড করে রাখার ফলে অনেকেই তা প্রতারিত হচ্ছে। এজন্য আমি আপনাদেরকে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোডের যে মূল লিঙ্ক বা অফিসিয়াল ফরমটির যে লিংক সেটি আমি আপনাদেরকে নিচে দিয়ে দিচ্ছি।

 

*ডাউনলোড করুন *

 

উপরের লিংকটির উপরে ক্লিক করে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড করে নিন।

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম

উপরের নিয়মে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড হয়ে গেলে তা প্রিন্ট আউট করে আপনাকে পূরণ করতে হবে সঠিক নিয়মে। সঠিক নিয়মে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরমটি পূরণ না করলে তা সমাজসেবা অধিদপ্তরে গ্রহণযোগ্য হবে না। তাই নিচের দেখা নিয়ম অনুসরণ করে বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম পূরণ করুন।

 

“বয়স্ক ভাতা মঞ্জুরীর আবেদনপত্র”

বরাবর,

 

আপনার নিকটস্থ সমাজসেবা অধিদপ্তরের নাম উল্লেখ করবেন।

 

বিষয়- যেটা আছে সেটি উল্লেখ রাখবেন।

ডানদিকে আপনার পাসপোর্ট সাইজের ছবি সংযুক্ত করবেন।

এরপরে নিচে থাকা আপনার নাম -আপনার পিতার নাম-আপনার মাতার নাম এবং বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা আপনার ভোটার আইডি কার্ডে যেভাবে আছে সেভাবে উল্লেখ করুন।

আবেদনকারীর বাৎসরিক আয় বলে একটি অপশন দেখতে পাবেন এখানে অবশ্যই আপনার বছরে কত টাকা আয় হয় সেটি উল্লেখ করুন।

নিচে আসলে স্বাস্থ্যগত অবস্থা- এখানে আপনি টিক মার্ক দিয়ে দিন।

অর্থ সামাজিক অবস্থা-এখানেও আপনি আপনার বর্তমান যে অবস্থা সেটি ঠিকমত দিয়ে দিন।

এছাড়াও নিচে থাকা আরো কিছু প্রয়োজনীয় আপনার তথ্য প্রদান করে আপনি আবেদন ফরমটি সম্পূর্ণভাবে পূরণ করে ফেলুন।

অবশ্যই খেয়াল রাখবেন আবেদন ফরমটিতে যাতে কাটা ছেঁড়া অথবা কোন ইনফরমেশন বা তথ্য ভুল না হয়।

প্রথম অংশের সকল কার্যক্রম বা তথ্য আপনার প্রদান করা হয়ে গেলে। নিচের দিকে আপনারা দেখতে পাবেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/ সিটি কর্পোরেশন অথবা পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির অবশ্যই সিল সিগনেচার নিতে হবে।

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরমের দ্বিতীয় অংশে আপনার কোন কিছু লিখতে হবে না। এ অংশের সমাজসেবা কল্যাণ অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ পূরণ করবে।

সকল তথ্যগুলো পূরণ করা হলে এবং সিল সিগনেচার দায়িত্ব ব্যক্তির নেয়া হয়ে গেলে। সশরীরে আপনি এই আবেদনপত্রের সঙ্গে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তরে জমা দিন।

আপনার বয়স্ক ভাত আবেদন জমা হলে সমাজসেবা অধিদপ্তর তা যাচাই বাছাই করে। আপনার সকল তথ্যগুলি এবং তাদের শর্তের সঙ্গে সকল বিষয়গুলি মিলে গেলে । আপনাকে বয়স্ক ভাতা প্রদান করার ক্ষেত্রে বাছাই করবে। পরবর্তীতে আপনি বয়স্ক ভাতা প্রাপ্তিদের লিস্টে যুক্ত হবেন।

আশা করছি উপরের এই নিয়ম অনুসরণ করে সঠিকভাবে সঠিক এই বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড করে সকল তথ্যগুলি সঠিক দিয়ে এই ফরম পূরণ করে তা নিকটস্থ ইউনিয়ন পরিষদ অথবা সিটি কর্পোরেশন অথবা পৌরসভার সিগনেচার নিয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তরে আপনি জমা দেন। তাহলে অবশ্যই আপনি বয়স্ক ভাতা পাওয়ার জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

 

বয়স্ক ভাতা সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন উত্তর

বয়স্ক ভাতা কত টাকা?

 

১৯৯৭- ৯৮ অর্থবছরে বয়স্ক ভাতা চালু হলে প্রতি বয়স্ক ব্যক্তিকে প্রতি মাসে ১০০ টাকা প্রদান করা হতো।

 

বর্তমানে ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে তা প্রতি জনের জন্য ৬০০ টাকা করে বাংলাদেশ সরকার নির্ধারণ করেছে।

 

বয়স্ক ভাতার টাকা কিভাবে পাওয়া যায়?

 

বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিং নগদ বিকাশ রকেটের মাধ্যমে সমাজসেবা অধিদপ্তর নির্দিষ্ট তারিখে বয়স্ক ভাতা টাকা প্রদান করে থাকে।

 

বয়স্ক ভাতার আবেদন করার উপায়?

 

বয়স্ক ভাতার জন্য আপনি দুটি মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। ১) অনলাইনে সরাসরি বয়স্ক ভাতার আবেদন করে তাফলিন আউট করে সমাজসেবা অধিদপ্তরে জমা দিতে পারবেন।

 

২) অনলাইনের মাধ্যমে বয়স্ক ভাতার আবেদন ফরম ডাউনলোড করে তা পূরণ করে সমাজসেবা অধিদপ্তরে জমা দিতে পারবেন।

 

বয়স্ক ভাতা আবেদন ফি?

বয়স্ক ভাতা আবেদন কোন ধরনের ফি নেই আপনি ফ্রিতে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

 

বয়স্ক ভাতা আবেদনের বয়স?

 

বয়স্ক ভাতা আবেদনের পূর্বে কিছু যোগ্যতা ও শর্তাবলী রয়েছে।

 

সংশ্লিষ্ট এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন জাতীয় পরিচয় পত্র থাকতে হবে।

বয়স পুরুষের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৬৫ বছরের মহিলার ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৬২ বছর হতে হবে।

সরকার কর্তৃক সময় সময় নির্ধারিত বয়স বিবেচনা নিতে হবে।

বাংলাদেশের সেরা বক্তা আলেমদের বক্তাদের তালিকা

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৪, ২০২৪ | ৯:২৪ 25 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৪, ২০২৪ | ৯:২৪ 25 ভিউ
Link Copied!

আসসালামু আলাইকুম আজকে আলোচনা করব জনপ্রিয় চল্লিশটি বাংলাদেশের সেরা আমাদের বক্তাদের তালিকা সম্পর্কে। আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন যে ওয়াজ মাহফিল আমাদের ধর্মের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জীবনের একটি অংশ। তাই অজ মাহফিল সবারই পছন্দ। আজকে আলোচনা করব বাংলাদেশের ৪০ জন জনপ্রিয় আলেমদের বক্তাদের তালিকা সম্পর্কে।

এসবের সঙ্গে আরও জানতে পারবেন বাংলাদেশের সেরা বক্তাদের তালিকা সহ তারা কোথায় অবস্থান করেন কোন জেলায় অবস্থান করে সকল বিষয়ে আলোচনা করব তাদের শিক্ষা যোগ্যতা কত ইত্যাদি সম্পর্কে আলোচনা করব আপনারা সকলে মনোযোগ দিয়ে আমাদের এই পোস্ট এর সঙ্গে থাকুন।

আলেম কাকে বলে?

আলেম শব্দের অর্থ জ্ঞানী। শরিয়তের পরিভাষায় আলেম বলা হয়, যিনি দ্বীন ও শরিয়তের গভীর জ্ঞান রাখেন ও সেই জ্ঞান অনুযায়ী আমল করেন। পাশাপাশি সুন্নতের অনুসরণে নিজের জীবনকে পরিচালিত করেন এবং আল্লাহর ভয়ে সদা সন্ত্রস্ত থাকেন।

দ্বীনি ইলম শিক্ষার জন্য জরুরি একটি শর্ত হচ্ছে, সনদ থাকা। অর্থাৎ কোনো আলেমের কাছ থেকে ইলম শিক্ষা করা। বইপুস্তক দ্বীন শিক্ষার মাধ্যম হলেও মূলত দ্বীনি ইলম পাওয়া যায় উস্তাদের কাছ থেকেই। এভাবে ইলম শিক্ষা করা সরাসরি রাসুল (সা.) এর কাছ থেকে শিক্ষা করার মতোই। কারণ এই সনদ রাসুল (সা.) পর্যন্ত পৌঁছে।

বিজ্ঞাপন

আলেম কাকে বলে জেনে নিনঃ

সাধারণত আলেম এমন ব্যক্তিকে বোঝানো হয় যারা দ্বীনি প্রতিষ্ঠান থেকে কোরআন শরীফে ইসলামী সম্পর্কে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি প্রাপ্ত ব্যক্তিদের আলেম বলা হয়ে থাকে। আলেম শব্দের অর্থ হচ্ছে জ্ঞানী।

 

বিজ্ঞাপন

আলেম হওয়ার জরুরী বিষয় হচ্ছে সনদ থাকা। একজন তিনি ব্যক্তি যদি কোন আলেম থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে থাকেন তাকে আলেম বলা হয়।

 

নিচে উল্লেখিত বিষয়গুলো আলোচনা করা হবে বাংলাদেশের সেরা আলেম এর তালিকা সম্পর্কে। প্রিয় পাঠক আপনারা সকলে মনোযোগ দিয়ে আমাদের এই আলোচনা গুলো পড়ে নিন এবং আমাদের সঙ্গে থাকুন।

 

হাক্কানি আলেম কাকে বলে জেনে নিনঃ

আলেম ব্যক্তিদের চেনার সবথেকে বড় উপায় হচ্ছে তাদের চেহারায় পোশাকে সুন্নতের ছাপ দেখা যায় তাদেরকে আলেম ব্যক্তি হিসেবে তুলে ধরা হয়। একজন সাধারণ ব্যক্তি দ্বীনদার বেগ হিসেবে তাদেরকে চেহারা পোশাক ইত্যাদি এসবের মধ্য দিয়ে তাদেরকে বোঝা যায় আলেম ব্যক্তি। হাক্কানি আলেম দাওয়াত ও তাবলীগ মন্তব্য রাখেন। তাদের আচরণ ব্যবহার সবকিছুতে বোঝা যায় অতিরিক্ত গুন যদি কোন আলেমের মধ্যে দেখা যায় তাহলে তাকে হাক্কানি আলেম বলে বোঝানো হয়েছে।

 

বাংলাদেশের হাক্কানী আলেমদের নাম নিচে বিস্তারিত জেনে নিন।

 

বাংলাদেশের সেরা বক্তাদের তালিকা সম্পর্কে জেনে নিন/ বাংলাদেশ সেরা আলেমদের তালিকা জেনে নিন

বাংলাদেশ অনেক আলেম অলা একই রকম রয়েছে। তাদের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে বাংলাদেশের মানুষকে ইসলামের পথে নিয়ে আসা। এখন আলোচনা করব বাংলাদেশের সেরা আলেমদের তালিকা সম্পর্কে। বাংলাদেশ হাক্কানী আলেমদের নাম নিয়েছে আপনারা জানতে পারবেন তা জেনে নিন।

 

১. নামঃ মুফতি আমির হামজা

 

উনার শিক্ষাগত যোগ্যতা আল-কোরআন শীর্ষক অনার্স এবং মাস্টার্স সম্পন্ন করেন কুমিল্লা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়া।

তার জন্মস্থানঃ কুষ্টিয়া জেলায়

২. নামঃ মাওলানা সা শায়খআহমাদুল্লাহ

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ দাওরায়ে হাদিস কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড ইফতা খুলনা দারুল ইনম

জন্মস্থানঃ বশিকপুর লক্ষীপুর বাংলাদেশ

৩. নামঃ মুফতি রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ কামিল হাদিস চরমোনাই আলিয়া মাদ্রাসা ইফতার সাগরদী আলিয়া মাদ্রাসা বরিশাল

জন্মস্থানঃ চরমোনাই গ্রাম, কীর্তনখোলা বরিশাল জেলায়

৪. নামঃ ডঃ এনাম আল্লাহু আব্বাসী আব্বাসী হুজুর নামে পরিচিত

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ এইচএসসি পর্যন্ত বিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনা করেছেন মিশকাত দারুন আরশাদ থিসিস লখনৌ বিশ্ববিদ্যালয় তিতাস সালাত ওমর করাচি

জন্মস্থানঃ পাঠানটুলি আব্বাসী মঞ্জুর জয়পুর দরবার সিদ্ধিরগঞ্জ থানা নারায়ণগঞ্জ

৫. নামঃ মাওলানা মামুনুল হক

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাৎ পবিত্র কোরআনে হাফেজ ঢাকার লালবাগ জামতারা জামে মসজিদ মাদ্রাসা মিক জামাত প্রথম স্থান অধিকার লাভ করেন জামাত তৃতীয় স্থান দাখিল প্রথম স্থান তারপর উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও এইচএসসি অর্থনীতি অনার্স মাস্টার্স করে থাকেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটি

জন্মস্থানঃ মাওলানা মুমিনুল হকের জন্মস্থান আজিমপুর ঢাকা।

৬. নামঃ মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ 5 দারুন্ন জান্নাত সিদ্দিকিয়া জামিল মাদ্রাসা দেমরা ঢাকা আলিম পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ 5 আন্ডার গ্রাজুয়েট আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয় মিশর post-graduate ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া এমফিল এবং মালয়েশিয়া ইন্টার্নেশনাল ইসলামিক ইনস্টিটিউট।

জন্মস্থানঃ মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর জন্ম স্থান ঢাকা।

৭. নামঃ মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ চরমোনাই মাদরাসায় পড়াশোনা

জন্মস্থানঃ কুয়াকাটা বরিশাল

৮. নামঃ আল্লামা শাহ আহমদ শফী

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ মাদ্রাসা শিক্ষা 10 বছর বয়সে হাটহাজারী আল জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মাদ্রাসা ভর্তি হন হাজার হাজার১৯৪১ সালে উচ্চ শিক্ষার জন্য ভারতে যান তাফসীর হাদীস অধ্যয়ন দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসা

জন্মস্থানঃ চট্টগ্রামে রাঙ্গুনিয়া থানা টিলা গ্রামে অবস্থিত।

৯. নামঃ প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমান

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ শিক্ষাজীবন শুরু রুস্তমপুর কাওমী মাদ্রাসা। হাজার ১৯৭০ সালে ফুলবাড়িয়া আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পাস করেন।১৯৭৩ সালে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা থেকে আলিম পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন।

জন্মস্থানঃ ফুলবাড়ী ইউনিয়ন গোপালগঞ্জ জেলা সিলেট

১০. নামঃ আল্লামা ফরিদ উদ্দিন ইমাম শোলাকিয়া মাদ্রাসা

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ শিক্ষার হাতে ঘড়ি পিতার নিকট পরে ভর্তি হন সিরাজগঞ্জ জেলায় জামিয়া এমদাদিয়া এরপর উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের জন্য পাড়ি জমান ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ১৯৭৬ সালের প্রথম স্থান অধিকার করেন তাদের হাদীস সম্পূর্ণ করেন।

জন্মস্থানঃ কিশোরগঞ্জ জেলায় পাকুন্দিয়া উপজেলা হিজলিয়া গ্রাম

১১. নামঃ মুফতি আব্দুস সালাম চাটগামী

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ হাজার ১৯৫৮ সালে প্রাথমিক পড়াশোনা শেষ করে বাবুনগর মাদ্রাসা ভর্তি হন দাওরায়ে হাদিস ১৯৬৭ পাকিস্তানের জামিয়াতুল ইসলামিয়া হাদীছ শরীফ-এ পড়াশোনা করেন শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন মাশাল্লাহ।

জন্মস্থানঃ চট্টগ্রামে আনোয়ার থানা নদিয়া গ্রাম

১২. নামঃ শাইখুল হাদিস আব্দুল্লাহ পাহাড়পুরী

 

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ প্রাথমিক লেখাপড়ায় পাহাড়পুর এমদাদুল মাদ্রাসায় দাওয়াতের হাদিস মিশকাত লালবাগ ঢাকা

জন্মস্থানঃ পাহাড়পুর

১৩. নামঃ মুফতি ইমরান হুসাইন কাসেমী

 

জন্মস্থানঃ মিরপুর ঢাকা

১৪. নামঃ মুফতি লুৎফর রহমান ফরাজী

 

জন্মস্থানঃ পশ্চিম রামপুরা ঢাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ এবং মুফাসসিরের কোরআন

১৫. নামঃ মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরী

 

জন্মস্থানঃ চট্টগ্রাম

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম এবং জামিয়া আল ইসলামিয়া অধ্যয়ন করেন।

১৬. নামঃ মুফতি রফিকুল ইসলাম সিরাজী

 

জন্মস্থানঃ খুলনা

১৭. নামঃ মুফতি ইমরান হোসাইন কাসেমী

 

জন্মস্থান মিরপুর ঢাকা

১৮. নামঃ আব্দুল্লাহ আল আমিন

 

জন্মস্থানঃ ঢাকা

১৯. নামঃ মাওলানা তারেক মনোয়ার

 

জন্মস্থানঃ লক্ষ্মীপুর

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ প্রাথমিক শিক্ষা লক্ষ্মীপুরে উচ্চশিক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ ঢাকা আলিয়া থেকে হাদিস কামিল ডিগ্রী অর্জন করেছেন।

২০. নামঃ আব্দুল্লাহ হাই মুহাম্মাদ সাইফুল্লাহ

 

  •  জন্মস্থানঃ নওগাঁ জেলা
  •  শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ মাদ্রাসা জামিয়া সালাফিয়া কারমাইকেল কলেজ রংপুর

 

২১. নামঃ মুফতি আব্দুল কুদ্দুস

 

  •  জন্মস্থানঃ খুলনা

 

২২. নামঃ আলী আকবর সিদ্দিকী

 

  •  জন্মস্থানঃ হবিগঞ্জ

 

২৩. নামঃ মাওলানা খোরশেদ আলম কাসেমী

 

  •  জন্মস্থানঃ ঢাকা

 

২৪. নামঃ মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব

 

  •  জন্মস্থানঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

 

২৫. নামঃ মাওলানা মুজিবুর রহমান

 

  •  জন্মস্থানঃ চাঁদপুর

 

২৬. নামঃ আল্লামা ডঃ মোস্তফা আহমেদ

 

  •  জন্মস্থানঃ ঢাকা

 

২৭. নামঃ মাওলানা আজিজুল ইসলাম  জালালি

 

  •  জন্মস্থানঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

 

২৮. নামঃ মাওলানা মেরাজুল হক কাসেমী

 

  • জন্মস্থানঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

 

২৯. নামঃ মাওলানা আব্দুল বাসেত খান

 

  • জন্মস্থানঃ  সিরাজগঞ্জ
  • ৩০ নামঃ মুফতি মনসুরুল করিম
  •  জন্মস্থানঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

 

৩১. মুফতি  আব্দুল্লাহ খালেক সাহেব

 

  • জন্মস্থানঃ শরীয়তপুর
  • ৩২ নামঃ মুফতি মাহমুদ উল্লাহ আতিকী
  • জন্মস্থানঃ ঢাকা
  • ৩৩ নামঃ মুফতি ওসমান গনি মুছাপুরী
  •  জন্মস্থানঃ মাগুরা

৩৪. নামঃ মাওলানা আবু নাঈম মোঃ তানভীর

  •  জন্মস্থানঃ চাঁদপুর
  • ৩৫ নামঃ মুফতি শিহাববুদ্দিন
  •  জন্মস্থানঃ চাঁদপুর

৩৬. নামঃ মাওলানা আশরাফ আলী

  • জন্মস্থানঃ হবিগঞ্জ
  • ৩৭ নামঃ মাওলানা জাকারিয়া
  • জন্মস্থানঃ নাটোর জেলায়

৩৮. নামঃ মুফতি আমজাদ হোসাইন আশরাফী

  • জন্মস্থান ব্রাহ্মণবাড়িয়া
  • ৩৯ নামঃ মুফতি আনোয়ার হোসেন  চিশতী
  • জন্মস্থানঃ   নর্সিংদি
  • ৪০ নামঃ মাওলানা আতিকুর রহমান
  • জন্মস্থানঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

 

স্ত্রী সহবাসের সুন্নাত নিয়ম

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৭, ২০২৪ | ১২:৫৯ 17 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৭, ২০২৪ | ১২:৫৯ 17 ভিউ
Link Copied!

সহবাসের সঠিক নিয়ম হলো স্ত্রী নিচে থাকবে আর স্বামী ঠিক তার উপরি ভাবে থেকে সহবাস করবে। মহান আল্লাহ তায়ালা সহবাসের নিয়ম এভাবেই সুরা আরাফের ১৮৯ নম্বর আয়াতে

বলেছেন فَلَمَّا تَغَشَّاهَا حَمَلَتْ حَمْلاً خَفِيفًا فَمَرَّتْ بِهِ فَلَمَّا أَثْقَلَت دَّعَوَا اللّهَ رَبَّهُمَا لَئِنْ آتَيْتَنَا صَالِحاً لَّنَكُونَنَّ مِنَ الشَّاكِرِينَ (

অতঃপর পুরুষ যখন নারীকে আবৃত করল, তখন, সে গর্ভবতী হল। অতি হালকা গর্ভ। সে তাই নিয়ে চলাফেরা করতে থাকল। ( সুরা আরাফ: ১৮৯ অংশ)

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞ ডাক্তারগন এটিই বার বার বলে থাকেন।

বিধায় স্পষ্ট নিয়ম হলো স্ত্রী নিচে থাকবে স্বামি উপরে থাকবে। আর তাতেই স্ত্রী গর্ভধারন করবে।

সতর্কতা : এমন যেন না হয় যে স্ত্রী স্বামীর উপর থেকে বসে সহবাস করছে আর সেসময় স্বামীর বীর্যপাত হয়ে গেল। তাহলে ডাক্তারী চিকিৎসা মতে তখন বীর্য পুরো বের হয়না ভেতরে বিশেষ জায়গায় থেকে যায় আর তাতে পুরুষের ভেতর পাথর তৈরি হয়ে বড় ধরনের রোগ হবার আশংকা থাকে। তাছাডা স্ত্রী গর্ভধারণও করেনা।যদিও ইদানিং অনেক নিয়ম নেটে দেখানো হয় এ গুলো সঠিক নিয়ম নয় এগুলোতে প্রশান্তি নেই।

বিজ্ঞাপন

সহবাসের আরো কিছু সুন্নত নিয়ম হলো।

  1. স্ত্রী সহবাসের আগে ভাল করে দাতঁ ব্রাশ বা মিসওয়াক করবে।
  2. স্বামীও ভাল করে দাঁত মেসওয়াক বা ব্রাশ করবে। সিগারেট বা কোন বদ নেশার দুর্গন্ধ নিয়ে স্ত্রীর কাছে যাবে না।
  3. স্বামী স্ত্রী সহবাসের পুর্বে উভয় উজু করে নিবে
  4. বিসমিল্লাহ বলে আরম্ভ করা মুস্তাহাব। শুরুতে ভুলে গেলে বীর্যপাত হবার পর বিসমিল্লাহ পড়বে ।
  5. স্ত্রীগন শরিরে সুগন্ধি টেলকম পাউডার বা সুগন্ধি লাগিয়ে নিবে। স্বামীও আতর বা সুগন্ধি লাগিয়ে নিবে ।
  6. সহবাসের সময় কেবলা মুখি হয়ে করবেনা।
  7. সহবাসের সময় একেবারে উলঙ্গ হয়ে পড়বেনা। যদি তৃপ্তি না আসে তাহলে উপরে কোন কাপড় বা চাদর দিয়ে ঢেকে নিবে।
  8. বীর্যপাত হয়ে গেলে সাথে সাথে স্ত্রীর উপর থেকে নেমে পড়বেনা। বরং কিছু সময় তার উপর শুয়ে থাকবে। আবার পুরো শরিরের ভর তার উপর ছেড়ে দিবে না যাতে তার কষ্ট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা সুন্নত।
  9. সহবাসের পর দোয়া পড়বে। অথবা বাংলাতে বলবে হে আল্লাহ বিতারিত শয়তান থেকে আপনার কাছে আমরা আশ্রয় চাচ্ছি হে আল্লাহ আমাদেরকে নেক সন্তান দান করুন ও আপনার নেয়ামত দ্বারা পরিপূর্ন করুন। তাহলে এই সহবাস দ্বারা যদি সন্তান লাভ হয় তাহলে শয়তান সে বাচ্চার কোন ক্ষতি করতে পারবেনা ।
  10. কোন ভাবেই পায়ূ পথে সঙ্গমের চিন্তা ও করবেনা এটা মহাপাপ, যেটা কোরআন হাদিসে কঠিন ভাবে নিষেধ করা হয়েছে।তা ছাডা ডাক্তারী সাইন্স মতে উভয়ের এমন কঠিন ব্যধির আশংকা রয়েছে যার চিকিৎসা পৃথিবীর কোন ডাক্তার ও করতে পারবেনা।
  11. কোন আবস্হায় নেশা জাতীয় খাদ্যে বা পানীয় খেয়ে বা পান করে সহবাস করবেনা।
  12. কারো সামনে এমনকি নিজের আডাই/ তিন বছরের জাগ্রত শিশুর সামনে ও নয়।

সর্দিতে নাক বন্ধ হয়ে থাকলে দ্রুত যা করবেন

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৭, ২০২৪ | ১:১৫ 16 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৭, ২০২৪ | ১:১৫ 16 ভিউ
Link Copied!

শীতে সর্দি-কাশি, জ্বরের প্রকোপ বাড়ে। একই সঙ্গে নাক বন্ধের সমস্যা তো আছেই। নাক বন্ধ হয়ে গেলে কোনো কাজেই মন বসে না। শ্বাস নিতে সমস্যা হয়। মাথা ধরে থাকে সারাক্ষণ।

খাওয়া-দাওয়াতেও অরুচি আসে। বন্ধ নাক খোলার জন্য অনেকেই নানা রকম ড্রপ ব্যবহার করেন। এতে যে সব সময় সুফল পাওয়া যায়, তা নয়।

চিকিৎসকদের মতে, প্রতিদিন নাকের ড্রপ ব্যবহার করলে তা অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায়। তখন আর নাকের ড্রপ না নিলে ঘুম আসতে চায় না।

বিজ্ঞাপন

তার চেয়ে বরং বন্ধ নাক খোলার জন্য ঘরোয়া উপায়ে ভরসা রাখতে পারেন। জেনে নিন তেমনই কয়েকটি ঘরোয়া উপায়-

আদা-পুদিনার চা

 

বিজ্ঞাপন

এক কাপ পানি আদা থেঁতো করে দিয়ে ফুটিয়ে নিন মিনিট পাঁচেক। চা ছেঁকে নিয়ে তাতে কয়েকটা তাজা পুদিনা পাতা দিন। হালকা গরম থাকা অবস্থায় পান করুন। এতে আরাম পাবেন।

গোলমরিচ

 

হাতের তালুতে অল্প একটু গোলমরিচ গুঁড়া ও সামান্য সরিষার তেল দিন। আঙুলে এই মিশ্রণ লাগিয়ে নাকের কাছে ধরুন।

 

এতে হাঁচি হবে ও একই সঙ্গে নাক পরিষ্কার হয়ে যাবে। সরিষার তেল নাকে দিয়ে টানলেও বন্ধ নাক খুলে যায় ও নাক পরিষ্কার হয়।

 

গরম পানিতে গোসল

নিয়মিত গরম পানিতে গোসল করতে পারেন। এতেও বন্ধ নাক খুলে যাবে। এর পাশাপাশি, যতটা সম্ভব গরম পানীয় পান করুন।

 

সূত্র: বোল্ডস্কাই

দেশের বাজারে কমলো সোনার দাম

জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৬, ২০২৪ | ১০:৫০ 26 ভিউ
জব জনপ্রিয় বিডি
আপডেটঃ জানুয়ারি ২৬, ২০২৪ | ১০:৫০ 26 ভিউ
Link Copied!

জুমবাংলা ডেস্ক : রেকর্ড দাম হওয়ার পর দেশের বাজারে কিছুটা কমেছে সোনার দাম। সবচেয়ে ভালো মানের এক ভরি সোনার দাম এক হাজার ২৮৪ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে ভালো মানের (২২ ক্যারেট) এক ভরি সোনার দাম হয়েছে ৯৯ হাজার ৯৬০ টাকা।

বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে নতুন এই দাম কার্যকর হবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবী সোনার (পিওর গোল্ড) দাম কমার পরিপ্রেক্ষিতে এই দাম কমানো হয়েছে।

নতুন মূল্য অনুযায়ী ২১ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম কমে ৯৮ হাজার ৯১১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া ১৮ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম ৮১ হাজার ৭৬৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

আর সনাতন পদ্ধতির এক ভরি সোনার দাম ৬৮ হাজার ১১৮ টাকা করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোনার দাম কমানো হলেও অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে রুপার দাম। ক্যাটাগরি অনুযায়ী বর্তমানে ২২ ক্যারেটের রুপার ভরি এক হাজার ৭১৫ টাকা।

শিরোনাম:
বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম ডাউনলোড এবং পূরণ করে আবেদন করার নিয়ম সর্দিতে নাক বন্ধ হয়ে থাকলে দ্রুত যা করবেন ত্বক ফর্সা করার উপায় স্ত্রী সহবাসের সুন্নাত নিয়ম কোমর ব্যথার কারণ ও দূর করার উপায় পেটের চর্বি কমানর সহজ কিছু ব্যায়াম মেয়েদের মাসিক এবং মাসিকের সময় ব্যাথা হলে করনীয় সম্পর্কে জানুন মাসিক কী? দেশের বাজারে কমলো সোনার দাম বাংলাদেশের সেরা বক্তা আলেমদের বক্তাদের তালিকা অনলাইন থেকে আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে মিলনের সময় নারীদের করণীয় । লজ্জা নয় জানুন এশার নামাজ কয় রাকাত অভিজ্ঞতা ছাড়াই চাকরি দেবে এসিআই মোটরস ৩৫টি বাদে সব কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস উঠে গেল বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অভিজ্ঞতা ছাড়াই চাকরি দেবে এসিআই মোটরস 2024 শুভ রমজান শুভেচ্ছা বার্তা ও স্ট্যাটাস | 2024 Ramadan Mubarak Bengali Status ২০২৪ সালের রমজান ক্যালেন্ডার সময়সূচী-Ramadan Calendar 2024 ঢাকায় নিয়োগ দেবে মধুমতি ব্যাংক, আবেদন করন অনলাইনে